Facebook
Twitter
WhatsApp

নয়াপল্টনে সংঘর্ষে নিহত মকবুল সম্পর্কে যা জানা গেল

image_pdfimage_print

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে রাবার বুলেটে নিহত ব্যক্তির পরিচয় মিলেছে। তার নাম মকবুল (৪৫) এবং পেশায় কাপড়ের ডিজাইনার।

মকবুল নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার মৃত আব্দুস সামাদের ছেলে। তিনি মিরপুর-১১ নম্বরের লালমাটিয়া বাউনিয়াবাঁধের টিনশেড বাসায় ভাড়া থাকতেন।

বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে রাবার বুলেটে বিদ্ধ একজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়। মৃতদেহ শনাক্ত করেন মৃতের ভাই নুর হোসেন।

সত্যতা নিশ্চিত করে ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য রাখা হয়েছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিহত মকবুলের স্ত্রী হালিমা আক্তারে আহাজারি করতে দেখা গেছে। মকবুল এক কন্যাসন্তানের জনক।

মকবুলকে উদ্ধারকারী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, পার্টি অফিসের সামনে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে ছিলেন দেখতে পেরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বিকেল পৌনে ৪টায় মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরো বলেন, নিহতের শরীরে প্রচুর ছড়া গুলির চিহ্ন রয়েছে।

মকবুলের বড় ভাই আব্দুর রহমান বলেন, ‘চার ভাইয়ের মধ্যে মকবুল সবার ছোট। সে থ্রিপিসে পুঁতি বসানোর কাজ করত। কোনো রাজনীতির সঙ্গে আমার ভাই যুক্ত ছিল না। কাজের জিনিসপত্র কেনার জন্য সকালে চকবাজার যায় সে। পরে বিকেলে আমরা এই খবর পাই।’

মকবুল কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না বলেও জানান তাঁর স্বজনেরা।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হাসপাতালে আসেন মকবুলের স্ত্রী হালিমা বেগম ও মেয়ে মিথিলা (৮)। মকবুলের মেয়ে মিথিলা দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। এছাড়াও মকবুলের স্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মকবুলের বোন, ভাবী ও শাশুড়ি। মকবুলের বড় বোন আয়েশা বেগম জানান, মকবুল থাকতেন রাজধানীর মিরপুর ১১ নম্বরের টেম্পুস্ট্যান্ডের কাছে। তাদের বাড়ি ঢাকার কামরাঙ্গীরচরে। বাবা আব্দুস সামাদ (মৃত) ও মায়ের নাম জোহরা বেগম।

ঢামেক পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, ‘ওই ব্যক্তি ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এর আগে ঢাকায় আগামী ১০ ডিসেম্বর গণসমাবেশ সামনে রেখে গত দুই দিনের মতো আজও নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। সকাল থেকে দলীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে অবস্থান নিয়ে নয়াপল্টনে সমাবেশ করার পক্ষে স্লোগান দেন তারা। এ সময় তাদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার শেল নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। আজ বুধবার বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে রায়টকার দিয়ে টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে পুলিশ।

অন্যদিকে স্লোগান দিয়ে পাল্টা ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে ফকিরাপুল মোড় এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পুলিশের ছোড়া অসংখ্য টিয়ার শেল ও সাউন্ড গ্রেনেডে ধোঁয়াচ্ছন্ন হয়ে পড়ে দলীয় কার্যালয় ও এর আশপাশ এলাকা।

খবরটি শেয়ার করুন

Table of Contents

প্রধান উপদেষ্ঠা : আলহাজ্ব ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ এমপি, সংসদ-সদস্য ঢাকা ১৬,প্রকাশক : মোঃ মাসুদ রানা (জিয়া) ।সম্পাদক : শাহাজাদা শামস ইবনে শফিক।সহকারী সম্পাদক : সৌরভ হাসান সোহাগ খাঁন। 

Subscribe Now

নিউজরুম চিফ এডিটর : মোঃ শরিফুল ইসলাম রবিন।সম্পাদকীয় কার্যালয় : ১২০/এ মতিঝিল বা/এ, ৪থ তলা, সুইট-৪০২, ঢাকা- ১০০০বার্তা কক্ষ : ০১৬৪২০৭৮১৬৪ – বিজ্ঞাপনের জন্য : ০১৬৮৬৫৭১৩৩৭

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by www.channelmuskan.tv © 2022

x