13.3 C
Los Angeles
শুক্রবার, ডিসেম্বর ৮, ২০২৩

নির্বাচনের মাঠে

চিকিৎসার জন্য সস্ত্রীক সিঙ্গাপুর গেলেন মির্জা আব্বাস

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর...

উন্নয়ন-অর্জন এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন,...

নিপুণ রায়সহ ৫ শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে কেরানীগঞ্জে মামলা

রাজধানীর কেরানীগঞ্জে গতকাল শুক্রবার আওয়ামী লীগের পার্টি অফিস ভাঙচুর...

পুলিশের কর্মকাণ্ড নিয়ে সংসদে যা বললেন রুমিন ফারহানা

জাতীয় সংসদে বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেছেন, এই...

হামাস কারা, ফিলিস্তিনিদের মধ্যে কেন এতটা জনপ্রিয়?

আন্তর্জাতিকহামাস কারা, ফিলিস্তিনিদের মধ্যে কেন এতটা জনপ্রিয়?
খবরটি শেয়ার করুন

ইসরায়েলের সঙ্গে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়েছে ফিলিস্তিনের সশস্ত্রগোষ্ঠী হামাস। ইতিমধ্যে প্রাণ গেছে হাজারখানেক মানুষের। এর সূত্রপাত গত শনিবার, ইসরায়েলের ভূখণ্ডে হামাসের নজিরবিহীন রকেট হামলার মধ্য দিয়ে। মাত্র ২০ মিনিটে হাজার পাঁচেক রকেট ছুড়ে নিজেদের শক্তির জানান দিয়েছে হামাস। ভেদ করেছে ইসরায়েলের নিশ্ছিদ্র সুরক্ষাবলয়কে।

ইসরায়েলি দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে কঠোর জবাব দিতে ফিলিস্তিনি সরকারের চেয়েও টটস্থ থাকে হামাস। মূলত ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর ও গাজা উপত্যকা থেকে ইসরায়েলি দখলদারিত্বের অবসানের দাবিতে ১৯৮৭ সালে গঠিত হয় হামাস সংগঠনটি।

জেরুজালেমের আল-হারাম শরিফের গম্বুজ আর তরবারির প্রতীকসহ পতাকায় ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনের সশস্ত্র সংগ্রামের নেতৃত্ব দেয় হামাস। এমনকি ইসরায়েল অধিকৃত অঞ্চল, গাজা এবং পশ্চিম তীরের ভূখণ্ডকে একক ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র হিসেবেও দাবি করে আসছে দলটি।

২০০৭ সাল থেকে গাজা ভূখণ্ডের শাসন ক্ষমতা তাদের হাতে রয়েছে। সেই থেকে গাজাবাসীর সব অধিকার প্রতিষ্ঠায় সম্মুখ সারির যোদ্ধার ভূমিকা পালন করে আসছে হামাস। এ কারণে সাধারণ ফিলিস্তিনিদের কাছে তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে সংগঠনটি। এমনকি মুসলিম বিশ্বের প্রশংসায়ও ভাসছে তারা। ইসরায়েলে হামলার সমর্থনে বিভিন্ন দেশে মিছিলও বের করেছে মুসল্লিরা।

প্রশ্ন উঠেছে- হঠাৎ এত বড় হামলার পেছনে কারণ কি? কারা মদদ দিচ্ছে গোষ্ঠীটিকে। হামাসের দাবি, দশকের পর দশক ধরে চরম নৃশংসতার শিকার হয়ে আসছেন ফিলিস্তিনিরা। এর প্রতিক্রিয়ায় তারা ইসরায়েলে হামলা চালিয়েছে।

স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস গোষ্ঠীকে সরাসরি সমর্থন করে আসছে ইরান, সিরিয়া এবং ইয়েমেন। এমনকি লেবাননের ইসলামী গোষ্ঠী হিজবুল্লাহও বিভিন্ন ক্ষেত্রে হামাসকে সমর্থন করে। তবে হামাসের সবচেয়ে বড় পৃষ্ঠপোষক মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার। ২০১২ সালে প্রথম রাষ্ট্রনেতা হিসেবে হামাসের সঙ্গে বৈঠক করেন কাতারের আমির শেখ হামাদ বিন খলিফা আল-থানি। এ পর্যন্ত হামাসকে প্রায় ২০০ কোটি ডলার অর্থায়ন করেছে দেশটি।

হামাসের আরেক পৃষ্ঠপোষক তুরস্ক। আর ক্ষেপণাস্ত্রসহ সমরাস্ত্র প্রযুক্তি দিয়ে সহায়তা করে ইরান। ফিলিস্তিনের অন্য গোষ্ঠীগুলোও হামাসকে অস্ত্র সহায়তা দেয়। সুদান এবং মিসরের মাধ্যমেও গাজায় বিপুল পরিমাণ অস্ত্র পাচার হয়ে থাকে বলে জানা যায়।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন মনে করে। তবে অনেক সংবাদমাধ্যম একে ‘ইসলামী সংগঠন’, ‘বিদ্রোহী গোষ্ঠী’ ও ‘স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র বাহিনী’ হিসেবেও উল্লেখ করে ।

Check out our other content

Check out other tags:

Most Popular Articles

x